সেই ফারজানার আমতলীতেই যৌতুকের বলি টুম্পা
২১ নভেম্বর, ২০১১ ৯:৫৩ অপরাহ্ণ

বরগুনা :যৌতুক চাওয়ায় বিয়ের আসরেই স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টিকারী ফারজানার আমতলীতে এবার যৌতুকের বলী হয়েছেন টুম্পা নামের এক গৃহবধু। বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলার পচাঁকোড়ালীয়া ইউনিয়নের বালিয়াতলী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রোববার সকালে টুম্পাকে হত্যা করার পর হাসপতালে লাশ ফেলে রেখে পালিয়েছে তারা স্বামী পরিমল। সোমবার সকালে পোষ্টমর্টেমের জন্য টুম্পার লাশ বরগুনায় মর্গে নিয়ে আসা হয়েছে।
টুম্পার বাবা দিনমজুর মধুসুদন রায় সোমবার দুপুরে জানান, সাত আট বছর আগে আতমলীর পচাঁকোড়ালীয়া ইউনিয়নের বালিয়াতলী গ্রামের পরিমল সরকারের সাথে টুম্পার বিয়ে হয়। বিয়ের পর বিভিন্ন সময়ে পরিমল টুম্পার কাছে যৌতুক দবী করতো। দিনমজুর বাবার পরিমলের এ ধরনের অযৌক্তিক দাবী উত্থাপন করার চেয়ে পরিমলের নির্যাতনকেই বরন করেছিল টুম্পা। বিভিন্ন সময়ে টুম্পা তাকে ফোন করে মারধরের কথা জানাতো। সর্বশেষ হালের বলদ কেনার জন্য পরিমল টুম্পার বাবা কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবী করে । কিন্তু টুম্পা যৌতুক দিতে অস্বীকৃতি জানালে রোবববার দুপুরে পরিমল টুম্পাকে বেধরক মারধর করে। পরে মৃত্যু নিশ্চিত জেনে টুম্পার মুখে বিষ ঢেলে পালিয়ে যায়। বিকেলের দিকে পরিমলের আত্মীয়রা ভ্যানে করে টুম্পাকে আমতলী  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে সোমবার সকালে পোষ্টমর্টেমের জন্য বরগুনার মর্গে পাঠায়।
আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাবুল আকতার বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে। লাশ পোস্ট মর্টেমের জন্য বরগুনা পাঠিয়েছি। তিনি আরো বলেন ‘প্রাথমিক ভাবে ধারনা  হত্যার পর মুখে বিষ ঢেলে দেয়া হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত নিহতের পক্ষ থেকে কোন মামলা করা হয়নি।

পাঠকের মন্তব্য