ঈদ আনন্দ ফয়’স লেকে
৭ আগস্ট, ২০১২ ৬:০৬ অপরাহ্ণ
-

আর মাত্র কয়েকদিন বাদেই আসছে খুশির ঈদ। ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে সবারই থাকে নানা রংয়ের আয়োজন। ঈদের নতুন জামাকাপড় পরে তো ঘরে বসে থাকা যায় না, মন চায় ঘুড়ে বেড়াতে। তাই তো ঈদের আনন্দে হারিয়ে যেতেও যেন নেই মানা। চট্টগ্রাম শহরে ঘুরে বেড়ানোর মতো অনেক স্পট থাকলেও নগরবাসীর জন্য প্রধান আকর্ষণ ফয়’স লেক কমপ্লেক্স। প্রকৃতি ও আধুনিকতার সমন্বয়ে গড়ে তোলা এ বিনোদন কেন্দ্রে রয়েছে সব বয়সী মানুষের জন্য বিনোদনের নানারকম উপকরণ আর পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা।


বিনোদন কেন্দ্রে প্রবেশের মুখে বিশাল এক তোরণ। এই তোরণ পার হয়ে ভেতরে প্রবেশ করলেই দেখা যাবে সাজানো গোছানো এক সুন্দর পরিবেশ। এখানকার সিঁড়ি ভেঙে ওপরে উঠলেই দেখা মিলবে ফয়’স লেকের এবং লেকের দুপাশে শুধুই সবুজের সমারোহ। জীব বৈচিত্র্যে ভরপুর ফয়’স লেকের দুপাশ জুড়ে রয়েছে শুধু গাছ আর গাছ। রয়েছে বাহারি নামের অনেক পাহাড়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অক্ষুণ্ন রেখে সব বয়সী মানুষের জন্য কনকর্ড এন্টারটেইনমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড গড়ে তুলেছে সর্বাধুনিক এ বিনোদন কেন্দ্রটি। আকর্ষণীয় এই বিনোদন কেন্দ্র দু’ভাগে বিভক্ত-অ্যামিউজমেন্ট পার্ক এবং ওয়াটার পার্ক সি-ওয়ার্ল্ভ্র। অ্যামিউজমেন্ট পার্ক গড়ে তোলা হয়েছে অনেকগুলো রাইডের সমন্বয়ে। উল্লেখযোগ্য রাইডগুলোর মধ্যে রয়েছে সার্কাস সুইং, বাম্পার কার, ফ্যামিলি রোলার কোস্টার, ফেরিস হুইল, পাইরেট শিপ, কফিকাপ, রেড ড্রাইস্লাইড, ইয়োলো ড্রাইস্লাইড, বাগ বইন্স ইত্যাদি। এই কমপ্লেক্সের অন্যতম আর্কষণীয় ‘পিজন স্কয়ার’। নানারকম কবুতরের দেখা মিলবে এখানে। আগত দর্শনার্থীরা কবুতরকে খাবার দিলে নির্ভয়ে শরীরে এসে বসে, যা দেখলে মনে হয় যেন কতদিনের বন্ধুত্ব। লেক ভ্রমণের জন্য আছে বোট, স্পিড বোট, ইঞ্জিন বোট, ওয়াটার বি ইত্যাদি। খাওয়া-দাওয়ার জন্য আছে অনেক রেস্টুরেন্ট, যেখানে পাওয়া যায় দেশি-বিদেশি নানারকম খাবার। অ্যাডভেঞ্চার ল্যান্ড রেস্টুুরেন্টের ঠিক পাশেই দেখা মিলবে হরেকরকম মাছের খেলা, খাবার ছিটিয়ে দিলে সব মাছ চলে আসে লেকের ধারে। লেকের ওপর রয়েছে ভেসে থাকা ফ্লোটিং রেস্টুরেন্ট, যেখানে বসলে পাওয়া যায় প্রকৃতির হিমশীতল হাওয়া। লেকের পাশের পাহাড়ের ঠিক ওপরেই আছে ফটো কর্নার, যেখানে দেখা মিলবে নানা ভঙ্গিতে গড়ে তোলা বিভিন্ন প্রাণীর ভাস্কর্য। লেকের গা ঘেঁষেই সামুদ্রিক প্রাণীদের ভাস্কর্য নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে পিকনিক স্পট অ্যাকুয়াটিক জোন। ঈদের দশ দিন পর্যন্ত চলে নানারকম আয়োজন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে দেশসেরা শিল্পীদের নিয়ে ঈদ কনসার্ট।


ফয়’স লেকের বোট স্টেশন থেকে ইঞ্জিন বোটে দশ মিনিটের পথ পেরুলেই দেখা মিলবে দেশের সর্ববৃহত্ ওয়াটার পার্ক সি-ওয়ার্ল্ড। ফয়’স লেকের একপ্রান্তে গড়ে তোলা হয়েছে জলের রাজ্যে এক রোমাঞ্চকর এই পার্ক। দিনভর সবাইকে নিয়ে জলেকেলি উত্সবে মেতে ওঠার জন্য রোমাঞ্চকর সব রাইডে গড়ে তোলা হয়েছে এ জায়গাটি। এখানকার সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান কৃত্রিম সমুদ্রসৈকত যা ওয়েভ পুল নামে পরিচিত। সাগড়ের ঢেউয়ের মতোই বড় বড় ঢেউ খেলা করে এখানে। টিউবে উঠে ঢেউয়ের তালে ভেসে বেড়ানো যায় ইচ্ছামতো, ডুবে যাওয়ার ভয় থাকেন না এখানে। ওয়েভ পুলের ঠিক পাশেই রয়েছে ড্যান্সিং জোন। কৃত্রিম বৃষ্টি, নানা রংয়ের আলো আর মন মাতানো মিউজিকের তালে তালে নেচে ওঠে আগত দর্শনার্থীরা। চিলড্রেন পুলটি সাজানো বাচ্চাদের উপযোগী অনেক রাইড নিয়ে। পরিবারের সবাইকে নিয়ে মজা করার জন্য আছে ফ্যামিলি পুল। সামান্য উঁচু থেকে খুব দ্রুত নিচের দিকে পানির মধ্যে পড়ে মজা পায় দর্শনার্থীরা। বেশ উঁচু জায়গা থেকে আঁকাবাকা পথ পেরিয়ে পুলে ধপাস করে পড়ার মজা পাওয়া যাবে এখানকার স্লাইড ওয়ার্ল্ডে। এছাড়াও রয়েছে মাল্টি স্লাইড, ডোম স্লাইড, পে-জোনের মতো মজার সব রাইড। আগত দর্শনার্থীদের জন্য রয়েছে চেঞ্জিং রুম, কেনাকাটার জন্য গিফট শপ, খাওয়া-দাওয়ার জন রেস্টুরেন্ট। ঈদের দিন থেকে দশ দিন পর্যন্ত চলবে ডিজে শো। ডিজে মিউজিক আর পুলের ঢেউয়ে নেচে গেয়ে ওঠার মজার তুলনা হয় না। তাই চট্টগ্রামের আনন্দ বিনোদনের সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান হিসেবে বিবেচিত হয় ওয়াটার পার্ক সি-ওয়ার্ল্ড।


ঈদের লম্বা ছুটিকে আনন্দময় করার জন্য আপনার সঠিক গন্তব্য হতে পারে ফয়’স লেক রিসোর্ট ও বাংলো। প্রকৃতির মাঝে আধুনিক স্থাপত্যে গড়ে তোলা হয়েছে ফয়’স লেক রিসোর্ট। লেক পেরিয়ে নৌকাযোগে যেতে হয় রিসোর্ট ও বাংলোতে। ওয়াটার পার্ক সি-ওয়ার্ল্ড লাগোয়া রিসোর্টে রয়েছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত পাহাড়মুখী ও হ্রদমুখী কক্ষ, নিরিবিলি পরিবেশে লেকের পাশেই পাহাড়ের কোল ঘেঁষে গড়ে তোলা হয়েছে বাংলো। বাংলোর ঝুলন্ত বারান্দা থেকে প্রকৃতির স্পর্শ পাওয়া যায় খুব সহজেই। রিসোর্ট ও বাংলোয় আগত পর্যটকদের খাওয়া-দাওয়ার জন্য রয়েছে মানসম্পন্ন রেস্টুরেন্ট যা চব্বিশ ঘণ্টা খোলা থাকে খাবার পরিবেশনের জন্য। ইচ্ছামতো অর্ডার দিলে পাওয়া যায় দেশি-বিদেশি সব মজাদার খবার। ঈদ আনন্দকে শতভাগ তৃপ্ত করতে আপনিও বেছে নিতে পারেন ফয়’স লেক কমপ্লেক্সকে।

পাঠকের মন্তব্য