রেমিটেন্সে আগ্রহ নেই ৮ ব্যাংকের
৩১ আগস্ট, ২০১২ ৬:০৭ অপরাহ্ণ
-

দেশের ৩০ বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মধ্যে ৮ বানিজ্যিক ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা আহরণের পরিমান নাজুক। বেসরকারি এই ৮টি বানিজ্যিক ব্যাংকের ৩ বছরে বৈদেশিক মুদ্রা (রেমিটেন্স) আহরণের পরিমান মাত্র ৩৮৭ মিলিয়ন ডলার, যা অপর একটি বেসরকারি বানিজ্যিক ব্যাংক- ইসলামী ব্যাংকের একক আহরণের সমান। বৈদেশিক মুদ্রা আহরণে এই ৮ ব্যাংকের আগ্রহ না থাকায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উদ্ধর্তন কর্মকর্তারা অসন্তুষ্ট।

অনাগ্রহী এই ৮ টি ব্যাংক হচ্ছে বাংলাদেশ কর্মাশিয়াল ব্যাংক, ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক লিমিটেড (এফএসবিএল), যমুনা ব্যাংক লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক ও প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড। ব্যাংকগুলোর ২০০৯-১০ হতে ২০১১-১২ অর্থবছরের রেমিটেন্স প্রতিবেদন এই চিত্র দেখা গেছে।

বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগের প্রতিবেদন হতে দেখা গেছে, ব্যাংকগুলো উপরোক্ত ৩ অর্থবছরে খুবই সামান্য পরিমাণ রেমিটেন্স সংগ্রহ করেছে। ওই সময়ে বাংলাদেশ কর্মাশিয়াল ব্যাংকের সংগ্রহের সর্বমোট পরিমান ০০.২৯ মিলিয়ন ডলার একই ভাবে ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক লি: (এফএসবিএল) ৩৫.৯৭ মিলিয়ন ডলার, যমুনা ব্যাংক লিমিটেড ৯৪.২৪ মিলিয়ন ডলার, ওয়ানব্যাংক ২৬.৫৭ মিলিয়ন ডলার, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ৭৩.৭৬ মিলিয়ন ডলার, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ৪৪.০২ মিলিয়ন ডলার, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক ১৬.২ মিলিয়ন ডলার ও প্রিমিয়ার ব্যাংক ৯৫.৯ মিলিয়ন ডলার আহরন করে।

আগস্ট মাসেও এ ৮ ব্যাংক গুলোর কোনো বাড়তি রকম তৎপরতা দেখা যায়নি। এর মধ্যে বাংলাদেশ কর্মাশিয়াল ব্যাংক  এ মাসে বৈদেশিক মুদ্রা আহরণ করেনি। অপর ৭ ব্যাংকের মধ্যে ফাস্ট সিকিউরিটি ব্যাংক লিমিটেড (এফএসবিএল) ৮.৫৭ মিলিয়ন ডলার, যমুনা ব্যাংক লিমিটেড ১.৬৪ মিলিয়ন ডলার, ওয়ান ব্যাংক ১.০৯ মিলিয়ন ডলার, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ০.২০ মিলিয়ন ডলার, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ০.৭৫ মিলিয়ন ডলার, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক ০.১১ মিলিয়ন ডলার ও প্রিমিয়ার ব্যাংক ১.৮১ মিলিয়ন ডলার আহরণ করছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান বার্তা২৪ডটনেট-কে বলেন, বেসরকারি এ বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে রেমিটেন্স আহরণে আমরা আহবান জানাচ্ছি। তাদের আমরা রেমিটেন্স বাড়াতে বিভিন্ন উপায় অবলম্বনের পরামর্শ দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, বিশ্বমন্দার প্রভাব কাটিয়ে ২০১১-১২ অর্থবছরের রেমিটেন্স প্রবাহ ধনাত্বক গতি এসেছে। ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে রেমিটেন্স বাড়াতে বাংলদেশ ব্যাংক নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। এখন প্রবাসীরা মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে পরিবারের কাছে টাকা পাঠাতে পারছেন। এ সব পদক্ষেপের ফলে রেমিটেন্স বাড়ছে। বাড়ছে রিজার্ভও পাশাপাশি কমতে শুরু করছে ডলারের দামও।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা ও নীতি বিভাগের মহাব্যবস্থাপক মাসুদ বিশ্বাস বার্তা২৪ডটনেট-কে বলেন, রেমিটেন্স প্রবাহ বাড়াতে এসব ব্যাংককে বার বার চিঠি দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া রেমিটেন্স বাড়াতে তাদের বিশ্বের বিভিন্ন দেশ নেটওয়ার্ক বাড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

পাঠকের মন্তব্য