জমি রক্ষায় তানভীরের নতুন কৌশল
১৭ অক্টোবর, ২০১২ ১২:২৫ অপরাহ্ণ
-

জমি রক্ষায় নতুন কৌশল নিয়েছে হলমার্ক গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর মাহমুদ ও চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলাম নিজেদের নামে কেনা প্রায় ৫০ কাঠা জমি তাঁদের একমাত্র ছেলে ফারহান ইসলাম ওরফে জিসানের নামে মালিকানা হস্তান্তর করেছেন। হেবা দলিলের মাধ্যমে এসব জমি দান করা হয়েছে। তবে ১৫ বছর বয়সী ফারহান ইসলামনাবালক হওয়ায় তাঁর স্বাভাবিক অভিভাবক তানভীর মাহমুদই থাকবেন। হেবা দলিলে তা উল্লেখ করাহয়েছে। হলমার্ক কেলেঙ্কারির মূল হোতা তানভীর মাহমুদ এখন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) হেফাজতে বা রিমান্ডে আছেন। দুদক এই মামলা করেছে। তানভীর মাহমুদের স্ত্রীও ওই মামলার একজন উল্লেখযোগ্য আসামি। হলমার্ক গ্রুপ সোনালী ব্যাংক থেকে দুই হাজার ৬৫৩ কোটি ৩৭ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। আত্মসাৎ করা অর্থের বিপরীতে হলমার্ক গ্রুপ সোনালী ব্যাংকে বেশ কিছু পরিমাণ জমি বন্ধক রেখেছে।এসব জমির বড় অংশই দখল করা। জাল দলিলও রয়েছে বলেসূত্র জানায়। তবে ছেলেকে দান করা জমির সবগুলো দলিলের নকল সংগ্রহ করে এইপ্রতিবেদক দেখেছেন, এসব জমি বৈধভাবে কেনা। মোট সাতটি দলিলের মাধ্যমে জমিগুলো দান করা হয়। এর মধ্যে চারটি জমির মালিকানা ছিল তানভীর মাহমুদের নামে এবং তিনটি জেসমিন ইসলামের নামে। নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানায়, সোনালী ব্যাংক এখনঅর্থ আদায়ের জন্য হলমার্কের নামে থাকা সব ধরনের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক হিসেবে নিচ্ছে। এ কারণেই প্রায় ৫০ কাঠা জমি রক্ষায় নিজেদের ছেলেকে দান করার পথ নিয়েছেন তানভীর ও জেসমিন দম্পতি। জানা গেছে, ছেলের নামে দান করা এসব জমি কাফরুলে অবস্থিত। আগে হলমার্ক গ্রুপ থেকে জানানো হয়েছিল, কাফরুল মৌজার ওই প্রায় ৫০ কাঠা জমি হলমার্ক গ্রুপের প্রধান কার্যালয় ভবন নির্মাণের জন্য কেনা হয়েছিল। রাজধানীর রোকেয়া সরণি প্রধান সড়কের পাশে অবস্থিত ওই জমির সরকারি হিসাবে দর ৭০ কোটি টাকা। তবে রোকেয়া সরণিতে প্রতি কাঠা জমি তিন থেকে পাঁচ কোটি টাকা দরে বিক্রি হয়েথাকে। সে হিসাবে হস্তান্তর করা ওই জমির বাজারদর কমপক্ষে ২০০ কোটিটাকা। ভূমি নিবন্ধন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ সেপ্টেম্বর বিকেলে মোহাম্মদপুর ভূমি নিবন্ধন কার্যালয়ে ৫৭৮২, ৫৭৮৩, ৫৭৮৪, ৫৭৮৫, ৫৭৮৬, ৫৭৮৭ ও ৫৭৮৮ নম্বর হেবা দলিলে কাফরুল এলাকার ওই জমিগুলোর মালিকানা হস্তান্তর করা হয়। জমিগুলো ২০০৯ থেকে শুরু করে ২০১১ সালের জুলাই মাসের মধ্যে কেনা হয়েছিল। মালিকানা হস্তান্তরের ক্ষেত্রেও হলমার্ক গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়ম মানেননি। মালিকানা হস্তান্তরের ক্ষেত্রে জমির দাতা ও গ্রহীতাকে ভূমি নিবন্ধন কার্যালয়ে সশরীরে এসে দলিলে স্বাক্ষর করতে হয়। কিন্তু১১ সেপ্টেম্বর তানভীর মাহমুদ, জেসমিন ইসলাম ও ফারহান ইসলাম ভূমি নিবন্ধন কার্যালয়ে সশরীরে আসেননি বলে জানা গেছে। হলমার্ক গ্রুপের কার্যালয়ে বসে দলিলগুলো স্বাক্ষর করা হয় বলে ভূমিনিবন্ধন কার্যালয়ের একটি সূত্রে জানা গেছে। মোহাম্মদপুর সাব-রেজিস্ট্রি কার্যালয়ের সাব-রেজিস্ট্রারের একজন সহকারী দলিল লিখে তা হলমার্ক গ্রুপের কার্যালয়ে গিয়ে স্বাক্ষর করিয়ে আনেন। এদিকে, দেশের বৃহত্তম ব্যাংক জালিয়াতির দায়ে গ্রেপ্তার তানভীর মাহমুদ ও তাঁর স্ত্রী জেসমিন ইসলাম মানিকগঞ্জ ও ধামরাইএলাকায়ও প্রায় এক হাজার একর কৃষিজমি কিনেছেন বলে জানা গেছে। সোনালী ব্যাংকথেকে জালিয়াতির মাধ্যমে উত্তোলন করা টাকার একটি অংশ দিয়ে ওই জমি কেনা হয়েছে বলে হলমার্ক গ্রুপের একটি সূত্র জানিয়েছে। সোনালী ব্যাংক অর্থ দিয়েছিল রপ্তানির কাজ পরিচালনার জন্য। সেই অর্থ দিয়ে জমি কেনাও অবৈধ, বেআইনি। ২০০৯ থেকে ২০১২ সালের বিভিন্ন সময়ে রাজধানীর কাফরুল, ধামরাই ও মানিকগঞ্জের ওই সব জমিতে এত দিন ‘এই জমির মালিক হলমার্ক গ্রুপ’—এমন সাইনবোর্ড টাঙানো ছিল। গতসেপ্টেম্বর মাসে সোনালী ব্যাংক ১৫ দিনের মধ্যে হলমার্ক গ্রুপের কাছে তাদের দেওয়া অর্থের অর্ধেক ফেরত চাওয়ার পরদিনই ওই সাইনবোর্ডগুলো সরিয়ে ফেলা হয়। ৭ সেপ্টেম্বর হলমার্ক গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমেদের কাছে কাফরুলের প্রায় ৫০ কাঠা জমি এবং ধামরাই ও মানিকগঞ্জের জমি কেনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি প্রথম আলোকে জানিয়েছিলেন, ওই সব জমি হলমার্ক গ্রুপের নামে কেনা হয়েছে। তুষার আহমেদকেও গ্রেপ্তার করেছে র্যা ব। সোনালী ব্যাংক থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে নেওয়া ঋণের বিপরীতে হলমার্ক গ্রুপ যে জমির দলিল জমা দিয়েছে, তাতে কাফরুল, ধামরাই ও মানিকগঞ্জের জমিগুলো নেই। হলমার্ক গ্রুপ নন্দখালী, কালামপুর, রাববাড়িয়া ও চারিপাড়া মৌজার প্রায় ১৬০০ কাঠা জমি বন্ধক দিয়েছে বলে দাবি করেছে। অর্থ আদায়ে অর্থঋণ আদালতেহলমার্ক গ্রুপের বিরুদ্ধে মামলা করবে সোনালী ব্যাংক। মামলায় জিতলে বন্ধকে থাকা জমি বিক্রি করতে পারবে সোনালীব্যাংক। অন্যদিকে, ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ঢাকার তেঁতুলঝোড়া মৌজায় হলমার্ক গ্রুপের দখলে থাকা ১০ একর বা ১২০০ কাঠা সরকারি খাস ও অর্পিত সম্পত্তি দখলমুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জেলাপ্রশাসকের কার্যালয় থেকে হলমার্ক গ্রুপকে দখল ছেড়েদিতে এবং অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এখনো স্থাপনা সরায়নি হলমার্ক গ্রুপ। ঢাকার জেলা প্রশাসক মহিবুল হক এ ব্যাপারে বি এন এন টুয়েন্টিফোর ডক কম কে বলেন, হলমার্ক গ্রুপের দখলে থাকা সরকারের ১০ একর খাসজমির মধ্যে পাঁচ একরে কোনো স্থাপনা নির্মাণ করাহয়নি। বাকি পাঁচ একরে হলমার্ক গ্রুপ সীমানা প্রাচীর ও টিনের ঘর নির্মাণ করেছে। এসব স্থাপনা বর্তমানে র্যা ব ও পুলিশের নজরদারির মধ্যেআছে। শিগগিরই স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করা হবে বলে তিনি জানান।

পাঠকের মন্তব্য